Mauryan Empire-সম্রাট অশোক ও ঐতিহাসিক কলিঙ্গের যুদ্ধ

Mauryan Empire সম্রাট অশোক ও ঐতিহাসিক কলিঙ্গের যুদ্ধ

 

Mauryan Empire কলিঙ্গ যুদ্ধ খ্রিস্টপূর্ব ২৬১ সালে সংগঠিত হয়, যখন সম্রাট অশোক কলিঙ্গ আক্রমণ করেন। অশোক সিংহাসনে আরহনের বারো বছর পরে এই অভিযান পরিচালনা করেন।

কলিঙ্গ যুদ্ধে অসংখ্য জীবনহানির ঘটনায় অশোক মর্মাহত হন এবং বৌদ্ধ ধর্ম  গ্রহণ করে অহিংস নীতি প্রচারে মনোনিবেশ করেন।

Map by Mauryan Empire
Mauryan Empire

আরওে পডু়ন: tourist places in kolkata কলকাতা শহর ও দর্শনিও স্থান

কলিঙ্গের যুদ্ধের সঠিক কারণ জানা যায় না। তবে ধারণা করা হয়, মৌর্য্য সম্রাট অশোকের কোন ভাই কলিঙ্গ রাজ্যে আশ্রয় নেন।

তার প্রতিশোধ নেবার জন্য অশোক কলিঙ্গ আক্রমণ করেন। খ্রিষ্টপূর্ব ২৬৫ অব্দে দয়া নদীর নিকটবর্তী ধৌলি পাহাড়ের কাছে মৌর্য্য ও কলিঙ্গ বাহিনীর মধ্যে ভীষণ রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ হয়।

দু’দলের প্রচুর হতাহতের মাধ্যমে অশোক কলিঙ্গ জয় করতে সক্ষম হন। এই যুদ্ধে কলিঙ্গ বাহিনীর ১,০০,০০০ সেনা ও মৌর্য বাহিনীর ১০,০০০ সেনা নিহত হয় ও অসংখ্য নর-নারী আহত হয়।

যুদ্ধের বীভত্সতা সম্রাট অশোককে বিষাদগ্রস্থ করেতোলে এবং তিনি যুদ্ধের পথত্যাগ করে বৌদ্ধধর্ম গ্রহণ করে অহিংসার পথে সাম্রাজ্য পরিচালনের নীতি গ্রহণকরেন।

পেক্ষাপট

সম্রাট অশোকের দ্বারা কলিঙ্গ আক্রমণের কারণগুলি রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক উভয়ই ছিল।

কলিঙ্গ একটি সমৃদ্ধ অঞ্চলের অন্তর্ভুক্ত ছিল যা শান্তিপূর্ণ এবং দক্ষ শিল্পী ব্যক্তিদের স্থান ছিল।

উৎকল নামে পরিচিত  সেই অঞ্চলের জনগন ভারতবর্ষের মধ্যে প্রথম বাণিজ্যের জন্য দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার উপকূলবর্তী অঞ্চলের দেশগুলিতে ভ্রমণ করতেন।

কলিঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ বন্দর এবং একটি শক্তিশালী নৌবাহিনী ছিল। তাদের একটি উন্মুক্ত সংস্কৃতি ছিল এবং তার অভিন্ন নাগরিক কোর্ড ব্যবহার করত।

সম্রাট অশোক

৩২১ খ্রিষ্টপূর্বাব্দে সাম্রাজ্যের পতন নাহওয়া পর্যন্ত কলিঙ্গ নন্দ সাম্রাজ্যের শাসন অধীন ছিল। কলিঙ্গ হল উপকূলীয় ওড়িশার একটি প্রাচীন নাম।

অশোকের পিতামহ  চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য পূর্বে কলিঙ্গ জয় করার চেষ্টা করেছিলেন,কিন্তু তিনি সেক্ষেত্র ব্যর্থ হয়েছিলেন।

অশোক স্বাধীন সাম্রাজ্য জয় করার জন্য নিজেই নিজেকে প্রস্তুত করেছিলেন বলে অনুমান করেছিলেন যে তিনি সিংহাসনে সুরক্ষিতভাবে প্রতিষ্ঠিত আছেন।

সম্রাট অশোক

অশোকের কলিঙ্গ যুদ্ধ তীব্রতার জন্য বা এর ফলাফলের হিসাবে ভারতের ইতিহাসে কোন যুদ্ধই কলিঙ্গ যুদ্ধে থেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ নয়।

মানব ইতিহাসে কোন যুদ্ধে বিজয়ী ব্যক্তির হৃদয়কে এক নির্মম নিষ্ঠুরতা ও অহংকারী মনভাব থেকে দৃষ্টান্তমূলক ধার্মিকতায় পরিবর্তিত করেছে।

বিশ্বের ইতিহাসে শুধুমাত্র কয়েকটি যুদ্ধে খুঁজে পেতে পারে যা এই যুদ্ধের সমতুল্য হতে পারে, তবে ওই যুদ্ধ গুলি কক্ষনই কলিঙ্গ যুদ্ধের থেকে বড় বা বেশি গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে না।

মানবজাতির রাজনৈতিক ইতিহাস সত্যিই যুদ্ধের একটি ইতিহাস এবং যুদ্ধ শেষে মানবতার ও শান্তি রক্ষার জন্য কলিংয়ের যুদ্ধের মত অন্য কোন যুদ্ধ সফল হতে পাড়েনি।

তার পিতার মৃত্যুর পর সিংহাসনের জন্য রক্তাক্ত যুদ্ধের পর, অশোক কলিঙ্গ জয় লাভে সফল হন – কিন্তু যুদ্ধের বর্বরতার পরিণতিটি

অশোকের যুদ্ধ সম্পর্কিত মতামত পাল্টে দেয় যুদ্ধের পর এবং কলিঙ্গ যুদ্ধে জয় লাভ করেও তিনি কোন নতুন যুদ্ধে সম্মতি দেননি।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here